বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ০৮:৩০ পূর্বাহ্ন

ওমানে পলাতক প্রবাসীরাও আউটপাশ নিয়ে দেশে যেতে পারবে

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ
  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ১৭ নভেম্বর, ২০২০
  • ৩৪
ওমানে পলাতক প্রবাসীরাও আউটপাশ নিয়ে দেশে যেতে পারবে

কোম্পানি/স্পন্সর থেকে পলাতক, পাসপোর্ট মালিকের কাছে অথবা রেসিডেন্স কার্ড নেই এমন প্রবাসিরাও এই মুহূর্তে ওমান থেকে কোনো ধরণের জরিমানা ব্যতীত দেশে ফিরতে পারবেন। সম্প্রতি ওমান সরকার সাধারণ ক্ষমা / আউটপাশ নামক সোনার হরিণের ঘোষণা দেয়। ঘোষণা অনুযায়ী ইতিমধ্যেই ওমানে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস সহ অন্যান্য দেশের দূতাবাস থেকে তাদের নিজ দেশের নাগরিকদের দেশে ফেরাতে রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম হাতে নিয়েছে। 

 

জরিমানা ছাড়াই স্থায়ীভাবে ওমান ছাড়তে ইচ্ছুক এমন প্রবাসীদের জন্য গতকাল রবিবার থেকে অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন শুরু করেছে ওমান শ্রম মন্ত্রনালয়। এই আউটপাশ চলবে আগামী ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত। শ্রম মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, যারা কোম্পানি থেকে পালিয়ে অন্য কোম্পানিতে কাজ করছেন, যাদের ওমানে থাকার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরেও ওমান ত্যাগ করেননি, তারা এই মুহূর্তে কোনো ধরণের জরিমানা ছাড়াই ওমান ত্যাগ করতে পারবেন। প্রবাসীদের অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করতে (www.mol.gov.om) আবেদন করতে অনুরোধ জানিয়েছে মন্ত্রণালয়। 

আরো পড়ুনঃ ওমানে বাংলাদেশ দূতাবাসে প্রবাসীদের উপচেপড়া ভিড়

কোনো প্রবাসীর যদি পাসপোর্ট না থাকে, তাহলে তার ভোটার আইডি কার্ড অথবা জন্ম নিবন্ধন নিয়ে দূতাবাসে যেয়ে আবেদন করতে হবে ট্র্যাভেল পারমিটের জন্য। হারিয়ে যাওয়া বা মেয়াদোত্তীর্ণ পাসপোর্টের জন্যেও দূতাবাসে যেয়ে আবেদন করতে হবে। তবে যাদের পাসপোর্টের মেয়াদ আছে, তাদের দূতাবাসে আসার প্রয়োজন নেই। তারা অনলাইনের মাধ্যমে অথবা যেকোনো সানাদ অফিস থেকে আবেদন করলেই আউটপাশ নিয়ে দেশে আসতে পারবেন।

করোনায় আক্রান্ত পাঁচ কর্মী: কুয়েতের বাংলাদেশ দূতাবাস বন্ধ ঘোষণা

কুয়েতের বাংলাদেশে দূতাবাসের পাঁচ কর্মীর করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় বন্ধ করা হয়েছে দূতাবাসের সব ধরণের কার্যক্রম। রোববার (১৬ নভেম্বর) দূতাবাসের এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে ১৯ নভেম্বর পর্যন্ত বন্ধ থাকবে দূতাবাসের সকল ধরণের কার্যক্রম।

বিবৃতি আরো বলা হয়েছে, দূতাবাসের পাসপোর্ট ও ভিসা উইংয়ের চারজন এবং সোনালী ব্যাংকের একজন প্রতিনিধি করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন। এই পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিবেচনা করে আবারো পাসপোর্ট সেবা চালু হলে বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে তা জানানো হবে বলেও বিবৃতিতে জানানো হয়েছে। অন্যান্য সেবাসমূহ ও জরুরি প্রয়োজনে দূতাবাসে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে।

১২ দিনে প্রবাসী আয়ে দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ রেকর্ড

রেমিট্যান্সে ফের রেকর্ড, এবার ১২ দিনেই ১ বিলিয়ন ডলার পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা

আবারও প্রবাসী আয়ের রেকর্ড গড়েছে বাংলাদেশ। এবার মাত্র ১২ দিনেই এক বিলিয়ন মার্কিন ডলার পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। সোমবার (১৬ নভেম্বর) অর্থ মন্ত্রণালয়ের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়, দেশের ইতিহাসে একক মাসের ১২ দিনে এর আগে কখনো প্রবাস থেকে এত টাকা আসেনি। এটিকে দেশের ইতিহাসে বিরল ঘটনা বলে উল্লেখ করা হয়। গড়ে প্রতি মাসে ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের ওপরে প্রবাসী আয় অর্জন এটি ইতিহাসে একটি বিরল ঘটনা।

 

চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরে জুলাই থেকে ১২ নভেম্বর পর্যন্ত মোট রেমিট্যান্স এসেছে প্রায় ১০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। গত ২০১৯-২০ অর্থবছরে একই সময়ে রেমিট্যান্স এসেছিল প্রায় ৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা গত বছরের একই সময়ের চেয়ে অন্তত ৪৩ শতাংশ বেশী। প্রবাসী আয়ের এ ঊর্ধ্বমুখী ধারা অব্যাহত থাকার জন্য সরকারের সময়োপযোগী ২ শতাংশ নগদ প্রণোদনাসহ বিভিন্ন পদক্ষেপের গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব রয়েছে বলে উল্লেখ করেন বিশেষজ্ঞরা।

আরো পড়ুনঃ বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম শ্রম বাজার ওমান

 

এ বিষয়ে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, ‘২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে বিদেশ থেকে বৈধপথে রেমিট্যান্স তথা প্রবাসী আয় পাঠালে ২ শতাংশ নগদ প্রণোদনা দেওয়া হবে বলে ঘোষণা হয়েছিল। এর পরপরই রেমিট্যান্স প্রেরণ বাড়তে শুরু করলে অনেকই বলতে শুরু করলেন এগুলো ঠিক নয়, থাকবে না, টেকসই নয়। কিন্তু প্রণোদনা ঘোষণার পর থেকে আজ পর্যন্ত রেমিট্যান্স প্রবৃদ্ধির যে প্রবাহ, তাতে তাদের ভবিষ্যদ্বাণী ভুল প্রমাণিত হয়েছে এবং আমরা যে সঠিক ছিলাম আরও একবার তা প্রমাণিত হলো।’

 

আরো দেখুন আজকের বুলেটিনে

প্রবাস টাইম সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

রিলেটেড নিউজ
© 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | এই ওয়েবসাইটের লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Technical Support By NooR IT
error: Content is protected !!