মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ০৮:১০ অপরাহ্ন

আমিরাতে খুলে দেওয়া হইলো মসজিদ

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ
  • প্রকাশিত: বুধবার, ১ জুলাই, ২০২০
আমিরাতে খুলে দেওয়া হইলো মসজিদ

করোনা মহামারীর কারণে দীর্ঘদিন বন্ধ রাখার পর সংযুক্ত আরব আমিরাতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে আজ থেকে পুনরায় খুলে দেওয়া হইলো মসজিদসহ সকল উপাসনালয়। দেশটির ‘দ্য জেনারেল অথরিটি অব ইসলামিক অ্যাফেয়ার্স অ্যান্ড এনডাওমেন্টস’ এর পক্ষ থেকে এই ঘোষণা দেওয়া হয়। মসজিদসহ অন্যান্য উপাসনালয়ে ৩০ শতাংশ উপস্থিত হতে পারবে এবং পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত জুমার নামাজ বন্ধ থাকবে।

এদিকে মসজিদ চালুর আগে ইমাম, মুয়াজ্জিন ও মসজিদের সকল কর্মকর্তাদের কোভিড-১৯ টেস্ট করা হয়েছে। সকল মসজিদে নির্দেশিকার বিস্তারিত আকারে পোস্টার লাগানো হয়েছে যা মুসল্লিদের অবশ্যই মেনে চলতে হবে।

মসজিদ চালুর ক্ষেত্রে নতুন নিয়ম সকল মুসল্লিকে মেনে চলতে হবে। নিম্নোক্ত ব্যক্তিগত স্বাস্থ্যবিধি মানা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে :

প্রতি ২টা সারির মধ্যে একটি সারি ফাঁকা রাখতে হবে।
প্রতি ২ ব্যক্তির মধ্যে ১.৫ মিটার দূরত্ব।
সমস্ত মুসল্লিদের মাস্ক ও গ্লাভস পরা বাধ্যতামূলক।
সমস্ত মুসল্লিদের নিজস্ব জায়নামাজ (প্রার্থনা মাদুর) মসজিদে আনতে হবে।
সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সালাম দিতে হবে, হাত মেলানো যাবে না।
নামাযের আগে বা পরে মুসল্লিরা একত্রিত হওয়া যাবে না।
প্রথম জামাত শেষে ২য় জামাত করা যাবে না।
জামাত শেষ হওয়া মাত্র মসজিদ ত্যাগ করতে হবে।
অসুস্থ ব্যক্তি ও কোভিড-১৯ রোগীর সংস্পর্শে যারা আছেন তাদের মসজিদে প্রবেশ নিষেধ।

বয়স সীমাবদ্ধতা…
–১২ বছরের নিচে এবং ৬০ বছরের বেশি বয়স্ক ব্যক্তিদের মসজিদে প্রবেশ নিষেধ।

মসজিদে নামাজের বিধি :
– আজানের সময় থেকে ২০ মিনিট পর্যন্ত মসজিদ চালু রাখা যাবে। এর মধ্যে জামাত শেষ করতে হবে।
– আজানের পরপরই জামাত চালু হবে।
– প্রতিটি জামাতের পরেই মসজিদ বন্ধ হয়ে যাবে।
– যেকোনো কিছু বিতরণ কঠোরভাবে নিষিদ্ধ।
– পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত নারীদের নামাজের স্থান বন্ধ থাকবে।
– ওযুখানা বা ওয়াশরুম বন্ধ থাকবে।

এছাড়াও বেশকিছু নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে, যা নিম্নে তুলে ধরা হইলো:
১- অবশ্যই নিজ নিজ বাসা অফিস কর্মস্থল থেকে অজু করে আসতে হবে, কারণ স্বাস্থ্য নিরাপত্তার জন্য মসজিদের অজুখানা ও টয়লেট সমূহ বন্ধ থাকবে।
২- সাথে জায়নামাজ নিয়ে আসতে হবে এবং নামাজ শেষে নিজ দায়িত্বে তা নিয়ে যেতে হবে, মসজিদে রেখে যাওয়া যাবেনা।
৩- মসজিদে অবস্থানের পুরো সময়টা মাস্ক পড়ে থাকতে হবে।
৪- কোন ভাবেই মসজিদের মুসহাফে (ক্বোর’আন) হাত দেওয়া যাবেনা।
৫- প্রত্যেক মুসল্লির মধ্যখানে দেড় মিটার ফাঁকা থাকবে।
৬- প্রতি দুই কাতারের মাঝখানে এক কাতার খালি থাকবে।

আরও পড়ুনঃ প্রাকৃতিক সুন্দরের অপরূপ লীলাভূমি ওমান

৭- আজানের পর পরই ইক্বামাহ দিয়ে নামাজ শুরু হয়ে যাবে, তাই মসজিদের ঘড়ি থেকে আজানের সময় দেখে নিতে হবে, ইক্বামাহর সময় নয়।
৮- নামাজ শেষ হওয়ার সাথে সাথে মসজিদের দরজা বন্ধ করে দেওয়া হবে, তাই সুন্নাহ/নফল নামাজ বাসা/ অফিস/কর্মস্থলে গিয়ে আদায় করতে হবে।
৯- নামাজের আগে পরে কারো সাথে হ্যান্ডশেক করা যাবেনা।
১০- যাদের বয়স ৬০ এর উপর এবং যাদের বয়স ১২ এর নিচে তারা মসজিদে আসতে পারবেনা, সাথে সাথে যারা দীর্ঘদিন বিভিন্ন রোগ ব্যাধিতে ভুগছেন তারাও আসতে পারবেনা।
১১- মসজিদে কোন ধরনের খাদ্য পানীয় বণ্টন করা যাবেনা।

প্রবাস টাইম সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

রিলেটেড নিউজ
© 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | এই ওয়েবসাইটের লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Design by : NooR IT
www.ashrafalisohan.com
error: Content is protected !!