শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ০৫:৪১ পূর্বাহ্ন

ওমানে করোনায় নতুন আক্রান্ত ৭১২

  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ৯ জুন, ২০২০
ওমানে করোনায় লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে মৃত
ফাইল ছবিঃ

ওমানে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত নতুন ৭১২ জন ব্যক্তিকে সনাক্ত করেছে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। আক্রান্তদের মধ্যে ৩৫০ জন প্রবাসী এবং ৩৬২ জন ওমানি নাগরিক। এখন পর্যন্ত সর্বমোট আক্রান্ত ১৮,১৯৮ জন, সুস্থ হয়েছেন ৪,১৫২ জন এবং মৃত্যু ৮৩ জন। দেশটিতে গতকালের তুলনায় আজ আক্রান্তের সংখ্যা বাড়লেও মৃত্যুর সংখ্যা কমেছে। গতকাল ৬জনের মৃত্যুর খবর আসলেও আজ নতুন ২ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

এদিকে ওমানের একদল গবেষক করোনাভাইরাসের তিনটি জেনেটিক্স উদ্ভাবন করেছে। মানুষের মধ্যে ভাইরাস সংক্রমণ হওয়ার পরে এই ভাইরাসটি নিয়ে গবেষণা শুরু করেন তারা। গবেষণা দলে ছিলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কেন্দ্রীয় পাবলিক ল্যাবরেটরিসের মেডিকেল ল্যাবরেটরি বিশেষজ্ঞ ডা. সামিরা আল মাহরোকি, সুলতান কাবুস বিশ্ববিদ্যালয়ের বৈজ্ঞানিক গবেষণার সহকারী ডিন ড. ফাহাদ বিন মাহমুদ আল জাদজালিসহ সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও সুলতান কাবুস বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই জন মাইক্রোবায়োলজিস্ট এই গবেষণায় অবদান রেখেছেন।

সোমবার টাইমস অফ ওমানের সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে ফাহাদ আল জাদজালি বলেন, “ভাইরাস নিয়ে বেশ গবেষণা করা হয়েছে। এই ভাইরাসটির প্রধান সমস্যা হলও এটি গতবছরের ডিসেম্বরে চীনে প্রথম দেখা দিয়েছে। তারপর খুবদ্রুত বিশ্বব্যাপী এই ভাইরাসটি ছড়িয়ে পরে। তবে ভাইরাসটি অনেকবার জীন পরিবর্তন করে সাড়া বিশ্বে এটি ছড়িয়েছে। তাই এটিকে নিয়ে গবেষণা খুব সহজ ছিলো না। তবে মহামারী চলাকালীন এই ভাইরাসটি কিভাবে পরিবর্তন হয়ে সাড়া বিশ্বে ছড়িয়েছে তা নিয়ে গবেষণা করে ওমান। এই গবেষণায় ভাইরাসটির তিনটি জেনেটিক্স উদ্ভাবন করা হয়।” করোনাভাইরাসগুলির প্রধান তিনটি জেনেটিক্স হলো জি, জিএইচ ও জিআর। দেশে ভাইরাসের মোট ৪৯ টি নমুনা নিয়ে এই গবেষণা চালানো হচ্ছে।

আল জাদজালি বলেন যে, “ওমানকে বিশ্ব মানচিত্রে তুলে ধরার জন্যই আমরা এই গবেষণা করেছি। বিশ্বব্যাপী করোনা ডাটাবেসে আমরা নতুন কিছু আবিষ্কার করতে পেরে অনেক আনন্দিত। ভাইরাসটির জেনেটিক্স পরিবর্তনে বিভিন্ন সময় তাদের জীন পরিবর্তন হচ্ছে। যার কারণে এই ভাইরাসের প্রোটিনের কাঠামোটি খানিকটা পরিবর্তিত হয়েছে। ভাইরাসটির ক্লেদগুলিকে শ্রেণিবদ্ধ করা হয়েছে। যাতে আমরা জানি যে একটি নির্দিষ্ট গ্রুপের লোকদের একটি নির্দিষ্ট উপসর্গ দেখা যায় কিনা। কারণ সংক্রামিত বিভিন্ন রোগীর মধ্যে এই ক্লেদগুলো থাকতে পারে। তবে আমরা এখনও বুঝতে পারছি না যে কিভাবে এই ভাইরাসটি এতো দ্রুত তার জীন পরিবর্তন করছে।

আরও পড়ুনঃ ওমানে মেয়াদোত্তীর্ণ ড্রাইভিং লাইসেন্স’র কোনো জরিমানা নেই: আরওপি

বিজ্ঞানীরা এখনও এ নিয়ে কাজ করে চলেছেন।” আল জাডজালি আরও বলেন: “কিছু ভাইরাস রয়েছে যা তাদের কাঠামো খুব দ্রুত বদলে দেয়। এ কারণেই তাদের ভ্যাকসিন বা প্রতিষেধক তৈরি করা সম্ভব হচ্ছে না।

আরও দেখুনঃ মধ্যপ্রাচ্য থেকে ২৮ হাজার প্রবাসী ফিরবেন শিগগিরই

প্রবাস টাইম সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

রিলেটেড নিউজ
© 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | এই ওয়েবসাইটের লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Design by : NooR IT
www.ashrafalisohan.com
error: Content is protected !!