শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ০৫:২৭ পূর্বাহ্ন

করোনা সঙ্কটেও ঈদের মাসে দেড় বিলিয়ন ডলার রেমিট্যান্স

  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ২ জুন, ২০২০
করোনা সঙ্কটেও ঈদের মাসে দেড় বিলিয়ন ডলার রেমিট্যান্স

মহামারী করোনা সংকটের মধ্যেও ঈদের মাসে ১৫০ কোটি ডলারের বেশি রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। সদ্য সমাপ্ত মে মাসে ১৫০ কোটি ৩০ লাখ (১.৫ বিলিয়ন) ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। যা গত এপ্রিল মাসের চেয়ে ৪১ কোটি ৬৬ লাখ ডলার বেশি। বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদনে এই তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

অর্থনীতিবিদরা বলছেন, ঈদকে কেন্দ্র করে প্রবাসীরা রেমিট্যান্স বেশি পাঠিয়েছেন। বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানান, মহামারি করোনার কারণে দীর্ঘদিন ইতিবাচক ধারায় থাকা এই সূচকটি গত কয়েক মাস ধরে পতনের ধারায় রয়েছে। তবে ঈদের আগে পরিবার পরিজন ও নিকটাত্মীয়ের কাছে বেশি রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। রেমিটসান্সের এই ঊর্ধ্বগতির কারণে স্বস্তি ফিরেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভেও।

সাধারণত প্রতি বছরই ঈদের আগে রেমিট্যান্সে গতি আসে। গত বছরের রোজার ঈদের আগে মে মাসে ১৭৪ কোটি ৮২ লাখ ডলারের রেকর্ড রেমিট্যান্স এসেছিল। এক মাসের হিসাবে যা ছিল বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যানুযায়ী, গত ফেব্রুয়ারি মাস থেকে টানা কমছে রেমিট্যান্স। এর আগে ২০১৭-১৮ অর্থবছরের সেপ্টেম্বর মাসে সর্বনিম্ন ৮৫ কোটি ৬৮ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স এসেছিল। তবে ঈদের কারণে মে মাসে রেমিট্যান্সে আশানুরূপ গতি ফিরেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদন অনুযায়ী, মে মাসের প্রথম ১১ দিনে ৫১ কোটি ২০ লাখ ডলার রেমিটেন্স আসে, ১৪ মে পর্যন্ত আসে ৮০ কোটি ডলার, ১৯ মে সেটি বেড়ে দাঁড়ায় ১০৯ কোটি ১০ লাখ ডলারে। এরপর ৩১ মে পর্যন্ত সেটি বেড়ে হয়েছে ১৫০ কোটি ৩০ লাখ ডলার। সব মিলিয়ে গত মে মাস পর্যন্ত ১১ মাসে প্রবাসীরা মোট ১ হাজার ৬৩৬ কোটি ডলারের অর্থ দেশে পাঠিয়েছেন। আগের বছরের একই সময় পর্যন্ত এসেছিল এক হাজার ৫০৫ কোটি ডলার। এ হিসেবে মে পর্যন্ত রেমিট্যান্স বেশি আছে ১৩১ কোটি ৩০ লাখ ডলার বা মাত্র ৮ দশমিক ৭২ শতাংশ। অথচ করোনাভাইরাসের প্রভাব ব্যাপকভাবে শুরুর আগের মাস গত ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত আট মাসে রেমিট্যান্সে প্রবৃদ্ধি ছিল ২০ শতাংশের বেশি।

আরও পড়ুনঃ এবারের বাজেট যেন প্রবাস বান্ধব হয়

এবার করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে ইতোমধ্যেই সাত লাখের মতো প্রবাসী শ্রমিককে দেশে ফিরতে হয়েছে। যারা রয়েছেন, তাদেরও অনিশ্চিত ভবিষ্যতের কারণে তেমন রেমিট্যান্স আশা করা হচ্ছিল না। মূলত মার্চ থেকে বৈশ্বিক পরিস্থিতি ওলটপালট হয়ে যাওয়া ওই নিরাশার দিকেই ইঙ্গিত দিচ্ছিল। তবে করোনা সংকটের মধ্যেও ঈদের মাসে ১৫০ কোটি ডলারের বেশি রেমিট্যান্স পাঠিয়ে আশার আলো ছড়াচ্ছে প্রবাসীরা।

 

প্রবাস টাইম সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

রিলেটেড নিউজ
© 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | এই ওয়েবসাইটের লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Design by : NooR IT
www.ashrafalisohan.com
error: Content is protected !!